মোঃ ইসমাইলঃ
চাঁদপুর জেলা হাইমচর উপজেলাবাসীর উন্নয়ন নিয়ে যিনি স্বপ্ন দেখেন সে আর কেউ না সে হলো হাইমচর উপজেলা পরিষদের ২ বারের সফল চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক নুর হোসেন পাটওয়ারী। প্রতিদিন ভোর না হতে নেমে যান কোন মানুষের কি প্রয়োজন। খোঁজ খবর নিতে শীত কিংবা ঝড় কোনটাই আটকে রাখতে পারিনি এমন জনবান্ধন নেতা কে। শীতকালে দেখা যায় নিজের কাঁধের শীতবস্ত্র নিয়ে চরাঞ্চালের মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে যান। দেশে বন্যা, ঘূর্ণিঝড় আগে পড়ে নিজে বন্যার পানিতে নেমে ঘরে ঘরে সাহায্য নিয়ে পাশে দাড়ান। ঘূর্ণিঝড় আঘাত ক্ষতি গ্রস্ত মানুষের ঘর নিজ হাতে তুলে দিয়েছেন। মনে হবে তিনি হাইমচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান। চলাফেরা স্বাভাবিক কে ধনী কে ভিক্ষারী। অফিসে আসলে নিজের পাশের চেয়ারে বসিয়ে শুনের দুঃখের সুখের কথা। কখনো কেউ তার অফিসে মিষ্টি না খেয়ে আসছে এমন কোন মানুষ বাপু বলতে পারবে না। হাইমচরে যত উন্নয়ন হয়েছে একমাত্র নুর হোসেন পাটওয়ারীর প্রচেষ্টা হয়েছে। উন্নয়নের কথা বলতে গেলে লিখেও শেষ করা যাবে না। তার হাতের ছোয়া প্রত্যেকের বাড়ির রাস্তা থেকে শুরু করে ছোট বড় কালভার্ট,ব্রিজ, বাড়ির ঘাটলা করে দিয়েছেন। বিশুদ্ধ পানির জন্য প্রত্যেক ঘরে ঘরে দিয়েছেন নলকূপ, গভীর নলকূপ। আলো জ্বলছে চরাঞ্চালের প্রতিটি পাড়ায়, কান্দিসহ হাইমচর উপজেলায় শতভাগ বিদ্যুতায়নের। শিক্ষা ক্ষেত্রে তিনি ছিলেন চট্টগ্রাম বিভাগীয় শিক্ষানুরাগী। হাইমচরে উন্নয়নে চাঁদপুর ৩ (চাঁদপুর সদর- হাইমচর) চতুর্থ বারের মত জনগণের ভোটের নির্বাচিত সংসদ সদস্য ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী বর্তমান সরকার সমাজকল্যাণ মন্ত্রী ডা. দীপু মনি কে সমানে রেখে ও তার নেতৃত্বে হাইমচর মহাবিদ্যালয় কে সরকারিকরন এবং বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ভবন নির্মাণ ও সকল উন্নয়ন গুলো হাইমচর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান নুর হোসেন পাটওয়ারী এগিয়ে নিয়ে যান।
করেছে হাইমচর মহাবিদ্যালয় কে সরকারিকরন, করে দিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বহুতলা ভবন, দিয়েছে কম্পিউটার ল্যাবসহ নানান শিক্ষা উপকরণ। চালু রেখেছে মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বিনামূল্যে বই, পোশাক, বৃত্তিসহ আর্থিক অনুদান। জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত যিনি মানুষের সেবা দিয়ে আসছেন তার বিকল্প নেই। হাইমচর উপজেলাবাসী জানান দূঃখে সুখে যাকে পাই আমাদের নুর হোসেন ভাই। তিনি হলেন মানব সেবার দূত হয়ে হাইমচর উপজেলাবাসী পাশে রয়েছেন। আমরা হাইমচরবাসী তার জন্য দোয়া করি আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় বারের মত চেয়ারম্যান হিসেবে পাই।
করেছে হাইমচর মহাবিদ্যালয় কে সরকারিকরন, করে দিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বহুতলা ভবন, দিয়েছে কম্পিউটার ল্যাবসহ নানান শিক্ষা উপকরণ। চালু রেখেছে মেধাবী শিক্ষার্থীদের জন্য বিনামূল্যে বই, পোশাক, বৃত্তিসহ আর্থিক অনুদান। জীবনের প্রতিটি মুহূর্ত যিনি মানুষের সেবা দিয়ে আসছেন তার বিকল্প নেই। হাইমচর উপজেলাবাসী জানান দূঃখে সুখে যাকে পাই আমাদের নুর হোসেন ভাই। তিনি হলেন মানব সেবার দূত হয়ে হাইমচর উপজেলাবাসী পাশে রয়েছেন। আমরা হাইমচরবাসী তার জন্য দোয়া করি আগামী উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে তৃতীয় বারের মত চেয়ারম্যান হিসেবে পাই।