রাজশাহী প্রতিনিধি: রাজশাহী নিউমার্কেট সংলগ্ন থিম ওমর প্লাজার পেছনের ম্যানহল থেকে নয়নাল (৪২) নামের এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে বোয়ালিয়া থানা পুলিশ। সে শ্যামপুর (কাটাখালি) এলাকার আ: জব্বারের ছেলে।
মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে এগারটার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এসময় মৃত্যের দেহ তল্লাশি করে জাতীয় পরিচয়পত্র পাই পুলিশ। রাজশাহীতে থিম ওমর প্লাজার ম্যানহল থেকে অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার

রাজশাহী ব্যুরো: রাজশাহী নিউমার্কেট সংলগ্ন থিম ওমর প্লাজার পেছনের ম্যানহল থেকে নয়নাল (৪১) নামের এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করেছে বোয়ালিয়া থানা পুলিশ। সে শ্যামপুর (কাটাখালি) এলাকার আ: জব্বারের ছেলে।
মঙ্গলবার (১২ ডিসেম্বর) সকাল সাড়ে এগারটার দিকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এসময় মৃত্যের দেহ তল্লাশি করে জাতীয় পরিচয়পত্র পাই পুলিশ।
ঘটনা সূত্রে জানাযায়, মঙ্গলবার সকালে প্রয়োজনের তাগিদে মার্কেটের পেছনে যায় রুমন নামের এক সিকিউরিটি গার্ড। সেখানে অর্ধফাঁকা ম্যানহলে একজন মানুষকে মৃত অবস্থায় দেখতে পায়। এরপর সে পুলিশকে জানালে ততক্ষনাৎ বোয়ালিয়া থানা ও পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের টিম হাজির হয়ে মরদেহটি উদ্ধার করে। পুলিশের প্রথমিকভাবে ধারনা করছে, মৃত্যুটি দুই থেকে তিন দিন আগের হতে পারে। মরদেহ উদ্ধারের খবর ছড়িয়ে পড়লে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ১৩ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর আব্দুল মমিন। মমিন জানান, সে আওয়ামী লীগের একটিভ কর্মী। আওয়ামী লীগের কোন প্রোগ্রাম হলে সে সবার আগে হাজির হতো। বিভিন্ন সময় আমাদের থেকে টাকা পয়সা নিত। তাকে দেখে আমরা আনন্দের সাথে টাকা দিতাম। সেও খুশি থাকতো।
সেখানে উপস্থিত থাকা পুলিশ বলছে, মরদেহটির পচন ধরে গেছে, তাই কিভাবে মারা গেছে এটা নিশ্চিত বলা যাচ্ছে না। ঘটনাস্থলের ১০ ফিট দুরুত্বে এমপি ওমর ফারুক চৌধুরীর দলীয় কার্যালয়ে রয়েছে। গতকাল সেই কার্যালয়ে অনেক লোকের সমাগম ছিল। তবুও কারো চোখে পড়েনি। বিষয়টি খতিয়ে দেখতে হবে। এরপর মরদেহটি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।
পরে এলাকায় খোঁজ নিলে কাটাখালি পৌর যুবলীগের আহব্বায়ক জনি ইসলাম জানান, ২০০০ সালের আগে প্রায় দেড় থেকে দুই বছর জেল হাজত খেটেছেন। সেসময় এলাকায় উশৃংখল কার্যকলাপ করার জন্য তার পরিবার জেল থেকে বের করেনি। তার এমন কর্যকলাপের জন্য স্ত্রীও তাকে ছেড়ে চলে যায়। সেই স্ত্রীর কাছে এক কন্যা সন্তান রয়েছে। পরে আমি ব্যক্তিগত উদ্যোগে একটি টিন সেডের বাড়ি করে দিয়েছি। তাকে দলীয় নেতারা হেল্প করতো। তাকে অনেকে মজা করে বারনাল বলে ডাকতো। তবে আজকের এই ঘটনা কোন ভাবে মেনে নেওয়া যায়না। আমরা চাই পুলিশ এই মৃত্যুটির যথাযথ তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নিবে।