মো:আলাউদ্দীন মন্ডল রাজশাহী :
রাজশাহীর বাঘায় আপন ভাইয়ের সাথে জমি নিয়ে বিরোধের জের ধরে গাছ কর্তনের ঘটনা ঘটেছে। মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারী) সকাল সাড়ে ৮টার দিকে উপজেলার বাউসা হেদাতিপাড়া এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় সুত্রে জানা যায়, বাউসা হেদাতি পাড়া এলাকার মৃত হাবিবুর রহমানের ছেলে খলিল ও সোহেল (৩২) এর যৌথ আবাদি জমিটি আরেক ছেলে নওফেল দাবী করে আসছে। এর আগে এ ব্যাপারে একটি শালিসও হয়েছে। তাতেও সমাধান না হওয়ায় নওফেল ক্ষিপ্ত হয়ে তার স্ত্রী ও ছেলেকে সাথে নিয়ে মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ৮টার দিকে খলিল এবং সোহেলের চাষকৃত জমি থেকে ৪০টি পেয়ারা গাছ, ১০টি লেবু গাছ, ৫টি পেঁপে গাছ এবং ২টি খেজুর গাছ কেটে জমিতে ফেলে রেখেই চলে যায় তারা।

এ ঘটনায় খলিল বাদী হয়ে নওফেল (৫০), তার ছেলে কাজল (২৫) এবং তার স্ত্রী রোকেয়া (৪৫) কে অভিযুক্ত করে বাঘা থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। উক্ত অভিযোগের প্রেক্ষিতে সঙ্গীয় ফোর্স সহ সরেজমিন তদন্তে আসেন বাঘা থানার এএসআই আব্দুল আলীম।

ভুক্তভোগীরা অভিযোগ করে বলেন, নওফেল এ জমিতে কোন অংশই পাবেনা! অথচ অযথা গন্ডগোলের সৃষ্টি করার জন্য এমন জঘন্য কাজ করেছে নওফেল। ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী মামুন নামের এক ব্যাক্তি মার্ফত গাছ কাটার বিষয়ে জানতে পেরে থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। পরে পুলিশ এসে নওফেল কে আটক করে থানায় নিয়ে যাওয়ার পথে তেঁথুলিয়া বাজার থেকে ৫নং ওয়ার্ড সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান-১ মহসীন আলী আসামীকে পুলিশ হেফাজত থেকে ছাড়িয়ে নেন। এমন অভিযোগের সত্যতা আছে কিনা জানতে চাইলে এএসআই আব্দুল আলিম তা অস্বীকার করেন।

এ বিষয়ে প্যানেল চেয়ারম্যান-১ মহসীন আলী বলেন, ঘটনাটি তাদের আপন ভাইয়ের সাথে ঘটেছে। আগামী শুক্রবার আমি শালিসি বৈঠকে এ ঘটনার আপোষ নিষ্পত্তির জিম্মা নিয়েছি।

তবে ভুক্তভোগীরা এমন ন্যাক্কার জনক অপরাধের শাস্তির দাবি জানিয়েছেন।