মেহেদী হাসানঃ
জামালপুরের বকশীগঞ্জে সন্ত্রাসী হামলায় নিহত সাংবাদিক গোলাম রব্বানী নাদিমের কন্যা রাব্বীলাতুল জান্নাতের পড়াশোনার দায়িত্ব নিয়েছেন জামালপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ।

শনিবার বিকালে তিনি নিহত সাংবাদিক নাদিমের গ্রামের বাড়ি নিলক্ষিয়া ইউনিয়নের গোমেরচর যান।

প্রথমে সফরসঙ্গীদের নিয়ে সাংবাদিক নাদিমের কবর জিয়ারত করেন। পরে পরিবারের সদস্যদের সাথে কথা বলেন এবং তাদেরকে সব ধরনের সহযোগীতার আশ্বাস দেন। সেই সাথে এই নারকীয় হত্যাকন্ডের সাথে জড়িত সকলের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবী করেন তিনি।

জামালপুর জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আলহাজ্ব এডভোকেট মুহাম্মদ বাকী বিল্লাহ বলেন,জামালপুর জেলা পরিষদ সাংবাদিক গোলাম রব্বানী নাদিমের পরিবারের পাশে সব সময় থাকবে। এ সময় তিনি নাদিমের কন্যা রাব্বীলাতুল জান্নাতের পড়াশোনার দায়িত্ব নেন। জান্নাত যতদিন পড়াশোনা চালিয়ে যাবে সকল ব্যয়ভার জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বহন করবেন বলে জানান।

এ সময় জেলা পরিষদের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মুনমুন জাহান লিজা,সহকারী প্রকৌশলী মোস্তাফিজুর রহমান,জেলা পরিষদ সদস্য জয়নাল আবেদীন,
হারুনুর রশিদ,সিরাজুল ইসলাম, শিলা সারোয়ার,
প্যানেল চেয়ারম্যান ফারহানা সোমা,নাজমা পারভীন,প্রধান সহকারী মজিবুর রহমান সহ সাংবাদিকরা উপস্থিত ছিলেন।

গত ১৪ জুন পেশাগত দায়িত্ব পালন শেষে বাড়ি ফেরার পথে সন্ত্রাসী হামলার শিকার হন সাংবাদিক গোলাম রব্বানী নাদিম। বৃহস্পতিবার ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তার মৃত্যু হয়। এ ঘটনায় নাদিমের স্ত্রী মনিরা বেগম বাদী হয়ে সাধুরপাড়া ইউপি চেয়ারম্যান মাহমুদুল আলম বাবুকে প্রধান আসামি করে মামলা করেন। মামলায় ২২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও ২০/২৫ জনকে আসামি করা হয়। মামলায় এখন পর্যন্ত প্রধান আসামিসহ ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। সবাইকে পুলিশ রিমান্ডে নেওয়া হয়েছিল। আসামীদের মধ্যে প্রধান আসামী মাহমুদুল আলম বাবু,রেজাউল করিম ও মনিরুজ্জামান মনির আদালতে দ্বায় স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।