1. admin@admin.com : administratoir :
  2. haimcharbarta2019@gmail.com : haimchar :
  3. support@wordpress.com : MUWY : MUWY
  4. saikatkbagerhat@gmail.com : Saikat A : Saikat A
  5. wadminw@wordpress.com : wadminw : wadminw
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ১১:৫৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম :
হাইমচরে গাজীপুর ইউপি নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৪, সাধারণ সদস্য ২৩ ও সংরক্ষিত মহিলা সদস্য ১০ জন মননোয়ন ফরম দাখিল আজ হাইমচরে চরভৈরবী ইউপি নির্বাচন চেয়ারম্যান পদে ৫ জন সাধারণ সদস্য ২৯ মহিলা সদস্য ১১ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা হাইমচরে গাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা পেলেন মোঃ হাবিবুর রহমান গাজী দীর্ঘ ১০ বছর পর অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দিনাজপুর জেলা আওয়ামীলীগের ত্রি-বার্ষিক সম্মেলন হাইমচরে চরভৈরবী ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার পক্ষে প্রচারণা করে নীলকমল ইউপি চেয়ারম্যান সউদ আল নাসের শিক্ষামন্ত্রী’র উন্নয়ন ধারাবাহিকতা রক্ষায় নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করুন….. নুর হোসেন পাটোয়ারী বর্ষীয়ান রাজনীতিবিদ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সভাপতি মাহবুবুল বাসার কালু পাটোয়ারী ৫ম মৃত্যুবার্ষিকী ফরিদগঞ্জ মজিদিয়া কামিল মাদরাসার ফাজিল অনার্সের শিক্ষার্থীদের সবক ও কৃতি শিক্ষার্থী সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে জামালপুরের ইসলামপুরে ট্রাক চাপায় শিশুর মৃত্যু মাদারগঞ্জে ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতিকে মারধর, প্রাণে মেরে ফেলার হমকী

টঙ্গীতে আশরাফ টেক্সটাইলস মিলস স্কুলের পাশে তেলের পাম্প আতঙ্কে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকরা

  • আপডেট টাইম: বুধবার, ২০ এপ্রিল, ২০২২
  • ৮০ বার দেখা

রেজাউল কবির রাজিব (টঙ্গী) : টঙ্গীতে গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের ৫৭নং ওয়ার্ড টঙ্গী বাজার ঢাকা ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম পাশে, টঙ্গীর আশরাফ সেতু মার্কেটে সংলগ্ন আশরাফ টেক্সটাইল মিলস হাইস্কুল, আর ঐ স্কুলের পাশেই গড়ে তোলা হয়েছে জ্বালানি তেলের পাম্প। ফলে বিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের দিন কাটে আতঙ্কে। অভিযোগ উঠেছে নিয়ম না মেনে আশরাফ টেক্সটাইল মিলস হাই স্কুলের পরিচালক ও পরিচালনা কমিটি বিদ্যালয়ের সীমানা প্রাচির ঘেঁষে পাম্প বসিয়ে হাতিয়ে নিচ্ছে লাখ লাখ টাকা।
সরেজমিন দেখা যায়, আশরাফ সেতু মার্কেটের দক্ষিণ পাশে আশরাফ টেক্সটাইল মিলস হাইস্কুল অবস্থিত। এমপিওভুক্ত এই শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের জমিতে বিদ্যালয়ের দেয়াল ঘেঁষে রয়েছে একটি তেলের পাম্প। পাম্পে জেনারেটরসহ বিভিন্ন গাড়ির শব্দে পাঠদান বাধাগ্রস্থ হচ্ছে শিক্ষক শিক্ষার্থীরা। অভিভাবক ও স্থানীয় এলাকাবাসীরা জানায়, বিদ্যালয়ের পাশে এই বড় তেলের পাম্প ও সিএনজি স্টেশন থাকার আতঙ্ক তো থাকবেই। এখানে শত শত শিক্ষার্থী পড়াশোনা করছে। স্কুল কমিটির লোকজন তেলের পাম্প বসিয়ে ভাড়া হিসেবে লাখ লাখ টাকা আদায় করে পকেট ভারি করছে। এ ছাড়াও এই বিদ্যালয়ের পরিচালনা পরিষদের বিরুদ্ধে অভিযোগের শেষ নেই। অভিযোগ উঠেছে প্রধান শিক্ষক হিসেবে আনোয়ার হোসেন নিয়োগ পাওয়ার পর কোন প্রকার নিয়ম কানুন না মেনে তার স্ত্রীকে কমিটির সাথে যোগসাজসে বিদ্যালয়ে শিক্ষক হিসেবে নিয়োগ দেন। বর্তমানে স্বামী-স্ত্রী দুই জনেই আশরাফ টেক্সটাইল মিলস হাই স্কুলের শিক্ষক। তারা দুজন যা বলে তাই সকল শিক্ষকের মেনে নিতে হয়। এ জন্য অন্যায় প্রতিবাদ করায় স্কুলের পাঁচ শিক্ষক মোঃ দুলাল উদ্দিন ভুইঞা, মোসাঃ ফাহিমা আক্তার, মোঃ আবুল বাশার, মোঃ হারুনুর রশিদ ও মোঃ এনামুল হক রাজা, প্রায় ৮বছর যাবত বিনা বেতনে ক্লাস করে যাচ্ছেন। তাদের অভিযোগ ছিল আশরাফ টেক্সটাইল মিলস যেহেতু নাই অন্যান্য স্কুলের মতো কমিটির মাধ্যমে বিদ্যালয়টি পরিচালিত হবে। এছাড়া আশরাফ টেক্সটাইলের জায়গা বিক্রি করে যাচ্ছে বিক্রিত দলিলে মাঝে স্কুলের দাগ নং উল্লেখ করা যাবে না। এর প্রতিবাদ করায় এই পাঁচজন শিক্ষককে সাময়িক বরখাস্ত করে প্রায় ৮ বছর যাবত তাদের স্কুলের পাওনা বেতনাদি ও সরকারি বেতন থেকে বঞ্চিত করে রাখছে এবং এই পাঁচজন শিক্ষককে মৌখিক ভাবে এমপিও সেলেন্ডার করার জন্য চাপ প্রয়োগ করছে। এসব রোধে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের হস্তক্ষেপ একান্তই জরুরী। এ বিষয়ে আশরাফ টেক্সটাইল মিলস স্কুলের প্রধান শিক্ষক আনোয়ার হোসেন বলেন, স্কুলের আগের প্রধান শিক্ষক গোলাম মোস্তফা এ জ¦ালানী তেলের পাম্প ও সিএনজি পম্প দিয়ে বসিয়ে কন্ট্রাক করে গেছে। আমার আমলে এই জ¦ালানি তেলের পাম্প বসানো হয়নি। বর্তমানে আমি ভাড়ার টাকা তুলে স্কুলে শিক্ষকদের বেতন ভাতা পরিশোধ করি। এ ব্যাপারে আমরা স্কুল পরিচালনা কমিটি সংবাদ সম্মেলন করব তখন আপনারা অনেক কিছু অবগত হবেন। পাঁচজন শিক্ষকের বেতনের ব্যাপারে স্কুলের প্রধান শিক্ষক মোঃ আনোয়ার হোসেন বলেন তারা আদালতে মামলা করেছে। সেই মামলা রায় তাদের বিরুদ্ধে গেছে। এছাড়াও আরো কয়েকটি মামলা বিচারাধীন আছে। তারা মামলার রায় পেলে তারা সরকারি বেতনসহ বিদ্যালয়ের সকল প্রকার সুবিধাদি পাবে। এ ব্যাপারে পত্রিকায় নিউজ করার প্রয়োজন নেই। আমরা সংবাদ সম্মেলন করব। তখন সংবাদ প্রকাশ করবেন।
এ ব্যাপারে টঙ্গী পাইলট স্কুলর এÐ গালর্স কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ আলাউদ্দিন মিয়া বলেন, পাম্পে তেল কিংবা গ্যাস নিতে অনেকে আনেক ধরণের গাড়ী আসে। যদি কোন দুর্ঘটনা ঘটে তাহলে স্কুলেরও ক্ষতি হতে পারে। আর স্কুলর জায়গায় পাম্প বসাইতে চাইলে পরিবেশ অধিদপ্তর, ফায়র সার্ভিস, সিটি কর্পোরেশন, জেলা প্রশাসকসহ ১৫-২০টি ছাড়পত্র লাগবে। আর শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘেষে এসব না থাকাই উত্তম। গাজীপুর জেলা শিক্ষা কর্মরত রেবেকা সুলতানা বলেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ঘেঁষে জ্বালানি তেলের পাম্প রয়েছে এটা আমার জানা নেই। একজন সাংবাদিকের মাধ্যমে আমি অবগত হয়েছি, জানার পর আমি স্কুল কর্তৃপক্ষকে বিষয়টির ব্যাপারে জানতে চাইলে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ বলেন তারা এখান থেকে জ¦ালানি তেলের পাম্প অন্য জায়গায় সরিয়ে দিবে। স্কুল কর্তৃপক্ষ নাকি জ¦ালানি তেল সিএনজি পাম্বের মালিক কর্তৃপক্ষের সাথে কথা বলেছে। পাম্প কর্তৃপক্ষ অন্যত্রে সরিয়ে নেওয়ার জন্য জায়গা খুজছে। আমাকে এ ব্যাপারে আশরাফ টেক্সটইল মিলস স্কুল কর্তৃপক্ষ অবগত করেছে। তবুও আমি বিষয়টি তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

আরও
হাইমচর বার্তা  ২০২২ © স্বর্বস্বত্ব সংরক্ষিত।
ডিজাইন ও ডেভেলপমেন্ট @ Rahat IT Ltd.

ওয়েবসাইট ডিজাইন প্রযুক্তি সহায়তায়: রাহাত আইটি লিঃ